সব গুলো প্রবন্ধ দেখতে এখানে ক্লিক করুন

ক্বোরবানীর তাৎপর্য ও বিধান

আল্লাহ্‌র (سبحانه وتعالى) নৈকট্য ও সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য প্রায় সকল উম্মাতের মধ্যেই ক্বোরবানীর প্রচলন ছিল। এটা আগেকার নাবীগণেরও ছুন্নাত ছিল। ক্বোরআনে কারীমে আল্লাহ (سبحانه وتعالى) ইরশাদ করেছেন:-

وَلِكُلِّ أُمَّةٍ جَعَلْنَا مَنسَكًا لِيَذْكُرُوا اسْمَ اللَّهِ عَلَى مَا رَزَقَهُم مِّن بَهِيمَةِ الْأَنْعَامِ

‘ইবাদাতের অর্থ ও তাৎপর্য

ইবাদাত শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো:- চূড়ান্ত বিনয়, আনুগত্য ও বশ্যতা।
শারী‘য়াতের পরিভাষায়- প্রকাশ্য কিংবা গোপনীয় যেসব কথা ও কাজ আল্লাহ سبحانه وتعالى ভালোবাসেন ও পছন্দ করেন, সে সবের একটি সামষ্টিক নাম হলো- ‘ইবাদাত।
শারী‘য়াতের পরিভাষায় আল্লাহ্‌র ‘ইবাদাত বলতে কি বুঝায়? 

শিরক ও তাশবীহ, তাওহীদের পরিপন্থী

শির্‌ক ও তাশবীহের ‘আক্বীদাহ তাওহীদের সম্পূর্ণ পরিপন্থী। এ দু’টো থেকে আল্লাহ্‌কে (سبحانه وتعالى) পূর্ণ পবিত্র ও অতি উর্দ্ধে মনে করার নামই তাওহীদ। যদি কেউ শির্‌ক ও তাশবীহ (মানবীয় কোন গুণ আল্লাহ্‌র জন্য সাব্যস্ত করার নাম তাশবীহ) এর ‘আক্বীদাহ সহকারে আল্লাহ্‌র (سبحانه وتعالى) প্রতি ঈমান রাখে, তাহলে সে মুছলমানের ঘরে জন্ম গ্রহণ করা

তাওহীদ অর্থ কি, তাওহীদ কত প্রকার ও কি কি?

তাওহীদ শব্দের আভিধানিক অর্থ- এক করা, একক ও অদ্বিতীয় সাব্যস্ত করা, একত্ববাদ প্রতিষ্ঠা করা। শারী‘য়াতের পরিভাষায় তাওহীদের অর্থ হলো- আল্লাহ্‌কে (سبحانه وتعالى) তাঁর সুমহান জাত (সত্তা) সর্বসুন্দর নাম ও সিফাতে (গুণরাজি-বৈশিষ্ট্যে) এবং তাঁর অধিকার, কর্ম ও কর্তৃত্বে এক, একক ও অদ্বিতীয় ষোষণা ও সাব্যস্ত করা, এবং এসব ক্ষেত্রে নিজের কথা, কাজ

সব গুলো অডিও শুনতে এখানে ক্লিক করুন

আল ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত আল ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী রচিত -‘আক্বীদাহ সংকলন- গ্রন্থ (৩৯নং পর্ব)

এই অডিওটি হলো আশ্‌শাইখ মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন رحمه الله কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী رحمه الله এর সুপ্রসিদ্ধ গ্রন্থ “লুম‘আতুল ই‘তিক্বাদ” এর ধারাবাহিক অডিও ভাষান্তর। বাংলা ভাষায় অডিওরূপে এটি ভাষান্তর করেছেন উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله। এতে ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) ‘আক্বীদাহ-বিশ্বাসের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের ‘উলামায়ে কিরামের চিরাচরিত স্বভাব–বৈশিষ্ট্যও হলো যে, তারা তাদের লিখনীর মাধ্যমে সর্বাগ্রে বিশুদ্ধ ইছলামী ‘আক্বীদাহ্‌র সংরক্ষণ এবং তা প্রচার ও প্রসার করে থাকেন।
বক্তব্যের এ পর্বে উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله বিশেষ করে দাজ্জাল সম্পর্কে নিম্নোক্ত বিষয়াদি আলোচনা করেছেন:-
১) “দাজ্জাল” শব্দের অর্থ কী এবং দাজ্জাল বলতে কি বুঝায়?
২) দাজ্জাল অবশ্যই আত্মপ্রকাশ করবে এবং এ বিষয়টি ছুন্নাহ দ্বারা প্রমাণিত।
৩) দাজ্জাল কোথায় আত্মপ্রকাশ করবে এবং তার অনুসারী কারা হবে?

আল ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত আল ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী রচিত -‘আক্বীদাহ সংকলন- গ্রন্থ (৩৮নং পর্ব)

এই অডিওটি হলো আশ্‌শাইখ মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন رحمه الله কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী رحمه الله এর সুপ্রসিদ্ধ গ্রন্থ “লুম‘আতুল ই‘তিক্বাদ” এর ধারাবাহিক অডিও ভাষান্তর। বাংলা ভাষায় অডিওরূপে এটি ভাষান্তর করেছেন উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله। এতে ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) ‘আক্বীদাহ-বিশ্বাসের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের ‘উলামায়ে কিরামের চিরাচরিত স্বভাব–বৈশিষ্ট্যও হলো যে, তারা তাদের লিখনীর মাধ্যমে সর্বাগ্রে বিশুদ্ধ ইছলামী ‘আক্বীদাহ্‌র সংরক্ষণ এবং তা প্রচার ও প্রসার করে থাকেন।
বক্তব্যের এ পর্বে উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله ক্বিয়ামাতের ‘আলামাত সম্পর্কে আলোচনা করেছেন:-
১) ক্বিয়ামাতের নিদর্শনাবলী সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের প্রয়োজনীয়তা ও উপকারিতা।
২) একমাত্র আল্লাহ-ই (سبحانه وتعالى) গাইব বা অদৃশ্য বিষয়াদি সম্পর্কে সম্যক অবগত। কেবলমাত্র ক্বোরআন ও সাহীহ্‌ হাদীছের প্রমাণাদির ভিত্তিতেই ক্বিয়ামাতের ‘আলামাতসমূহ নিরূপিত ও নির্ধারিত হবে, অন্য কিছুর ভিত্তিতে নয়।
৩) তথাকথিত যেসব দা‘য়ী নিজেদের যুক্তি কিংবা ইয়াহূদী-নাসারাদের গবেষণালব্ধ বিভিন্ন তথ্য-উপাথ্যের উপর ভিত্তি করে

আল ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত আল ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী রচিত -‘আক্বীদাহ সংকলন- গ্রন্থ (৩৭নং পর্ব)

এই অডিওটি হলো আশ্‌শাইখ মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন رحمه الله কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী رحمه الله এর সুপ্রসিদ্ধ গ্রন্থ “লুম‘আতুল ই‘তিক্বাদ” এর ধারাবাহিক অডিও ভাষান্তর। বাংলা ভাষায় অডিওরূপে এটি ভাষান্তর করেছেন উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله। এতে ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) ‘আক্বীদাহ-বিশ্বাসের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের ‘উলামায়ে কিরামের চিরাচরিত স্বভাব–বৈশিষ্ট্যও হলো যে, তারা তাদের লিখনীর মাধ্যমে সর্বাগ্রে বিশুদ্ধ ইছলামী ‘আক্বীদাহ্‌র সংরক্ষণ এবং তা প্রচার ও প্রসার করে থাকেন।
বক্তব্যের এ পর্বে উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله বিশেষ করে ক্বাযা ও ক্বাদ্‌র সহ নিম্নোক্ত বিষয়ে আলোচনা করেছেন:-
১) প্রাণ হরণকারী ফিরিশতা ও মূছা عليه السلام এর মধ্যকার অসাধারণ একটি ঘটনা উছতায আলোচনা করেছেন।
২) এই ঘটনাটিকে ‘আক্বীদাহ অধ্যায়ে, বিশেষ করে “অদৃশ্য বিষয়ে ঈমান পোষণ” অধ্যায়ে উল্লেখ করার কারণ হলো- “একজন নাবীর দ্বারা তাঁর থেকে অনেকগুণ বেশি শক্তিশালী একজন ফিরিশতাকে আঘাত করা অসম্ভব” এই যুক্তিতে কতিপয় বিদ‘আতী

আল ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত আল ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী রচিত -‘আক্বীদাহ সংকলন- গ্রন্থ (৩৬তম পর্ব)

এই অডিওটি হলো আশ্‌শাইখ মুহাম্মাদ ইবনু সালিহ্‌ আল ‘উছাইমীন رحمه الله কর্তৃক ব্যাখ্যাকৃত ইমাম ইবনু ক্বোদামাহ আল মাক্বদিছী رحمه الله এর সুপ্রসিদ্ধ গ্রন্থ “লুম‘আতুল ই‘তিক্বাদ” এর ধারাবাহিক অডিও ভাষান্তর। বাংলা ভাষায় অডিওরূপে এটি ভাষান্তর করেছেন উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله। এতে ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) ‘আক্বীদাহ-বিশ্বাসের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের ‘উলামায়ে কিরামের চিরাচরিত স্বভাব–বৈশিষ্ট্যও হলো যে, তারা তাদের লিখনীর মাধ্যমে সর্বাগ্রে বিশুদ্ধ ইছলামী ‘আক্বীদাহ্‌র সংরক্ষণ এবং তা প্রচার ও প্রসার করে থাকেন।
বক্তব্যের এ পর্বে উছতায হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله বিশেষ করে ক্বাযা ও ক্বাদ্‌র সহ নিম্নোক্ত বিষয়ে আলোচনা করেছেন:-
১) বিশুদ্ধ সূত্রে রাছূলুল্লাহ صلى الله عليه وسلم  থেকে যা কিছু বর্ণিত রয়েছে সেসব কিছুকে সত্য বলে বিশ্বাস করা আমাদের জন্য অত্যাবশ্যক।
২) রাছূলুল্লাহ صلى الله عليه وسلم  থেকে যা কিছু বর্ণিত রয়েছে তার বাহ্যিক প্রকৃত অর্থের বাহিরে ভিন্ন কোন অর্থ তালাশ করা উচিত নয়। যেমন ইছ্‌রা ও মি‘রাজ বিষয়ক হাদীছ। আমাদের জন্য আবশ্যক হলো এতদ্বিষয়ে রাছূলুল্লাহ عليه السلام থেকে বিশুদ্ধ হাদীছে যা বর্ণিত রয়েছে তার বাহ্যিক

সব গুলো ইবুক দেখতে এখানে ক্লিক করুন

আল্লাহ্‌র (سبحانه وتعالى) সুমহান নাম ও গুণাবলী বিষয়ে আহলুছ্‌ ছুন্নাহ্‌ ওয়াল জামা‘আতের ‘আক্বীদাহ্‌-বিশ্বাস, নীতি ও আদর্শ

আহ্‌লুছ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের ইমামগণ সকলেই এ বিষয়ে একমত যে, ক্বোরআনে কারীম এবং রাছূলুল্লাহ سبحانه وتعالى এর বিশুদ্ধ ছুন্নাহ্‌তে আল্লাহ্‌র যে সকল সুন্দর নাম যেভাবে বর্ণিত রয়েছে, কেবলমাত্র সেগুলোকে সেভাবেই আল্লাহ্‌র নাম বলে বিশ্বাস ও স্বীকার করতে হবে। তাতে কোনরূপ সংযোজন, বিয়োজন, পরিবর্তন কিংবা পরিবর্ধন করা যাবে না। কেননা

পড়তে এখানে ক্লিক করুন

Subscribe to our mailing list

* indicates required
Close