ইছলামের উপর অটল ও অবিচল থাকা (২য় পর্ব)

এটি শাইখ হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله প্রদত্ত অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণ। এতে তিনি অন্তর পরিশুদ্ধির অাবশ্যকতা, ক্বোরআন, ছুন্নাহ এবং ছালাফে সালিহীনের মানহাজের উপর অটল ও অবিচল থাকার প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে আলোচনা করেছেন। ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) মানহাজ অনুযায়ী ক্বোরআন ও ছুন্নাহ অনুশীলন করতে যেয়ে আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের অনুসারীগণকে অনেক দুঃখ-কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে ‌এবং প্রতিনিয়ত হচ্ছে। ছালাফে সালিহীনের অনুসারীগণ সমাজে নিজেদেরকে অপরিচিত-নিঃসঙ্গ ভাবেন। তবে রাছূলুল্লাহ صلى الله عليه وسلم এদেরকেই সুসংবাদ দিয়েছেন।

ইছলামের উপর অটল ও অবিচল থাকা (১ম পর্ব)

এটি শাইখ হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله প্রদত্ত অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণ। এতে তিনি অন্তর পরিশুদ্ধির অাবশ্যকতা, ক্বোরআন, ছুন্নাহ এবং ছালাফে সালিহীনের মানহাজের উপর অটল ও অবিচল থাকার প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে আলোচনা করেছেন। ছালাফে সালিহীনের (رضي الله عنهم) মানহাজ অনুযায়ী ক্বোরআন ও ছুন্নাহ অনুশীলন করতে যেয়ে আহলুছ্‌ ছুন্নাহ ওয়াল জামা‘আতের অনুসারীগণকে অনেক দুঃখ-কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে ‌এবং প্রতিনিয়ত হচ্ছে। ছালাফে সালিহীনের অনুসারীগণ সমাজে নিজেদেরকে অপরিচিত-নিঃসঙ্গ ভাবেন। তবে রাছূলুল্লাহ صلى الله عليه وسلم এদেরকেই সুসংবাদ দিয়েছেন।

মুছলমানের চারিত্রিক গুণাবলী

এটি শাইখ হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله প্রদত্ত অত্যন্ত মূল্যবান একটি বক্তৃতা। এতে তিনি চারিত্রিক ও নৈতিক আচার-আচরণের বিভিন্ন স্তর ও প্রকার সম্পর্কে আলোচনা করেছেন। উত্তম আচার-আচরণের সর্বোচ্চ পর্যায় হলো আল্লাহ্‌র সাথে উত্তম আচরণ। সেখান থেকে শুরু হয়ে পরবর্তীতে তা বিভিন্ন শেণী ও প্রকারে বিভক্ত হয়েছে। এসব শ্রেণী ও প্রকারের মধ্যে একটি হলো সাধারণ মানুষের সাথে সদাচরণ। ইছলাম প্রথমেই মানুষকে আল্লাহ্‌র (سبحانه وتعالى) সাথে সদাচরণের আহবান জানায়। এছাড়া, যেসকল চারিত্রিক গুণাবলীতে প্রত্যেক মুছলমানের গুণান্বিত হওয়া উচিত, শাইখ তাঁর এই বক্তৃতায় সেসব চারিত্রিক গুণাবলী ও আচার-আচরণ সম্পর্কে আমাদেরকে স্ববিস্তার অবহিত করেছেন।

ড.আশ্‌ শাইখ সালিহ্‌ আল ফাওযান রচিত “তাওহীদের গুরুত্ব” (৩য় পর্ব)

এই অডিওটি হলো আহামিয়্যাতুত্ তাওহীদ বা তাওহীদের গুরুত্ব শিরোনামে শাইখ ফাওযান حفظه الله প্রদত্ত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণের বাংলা অনুবাদ। যুগে যুগে সত্যিকার সকল ‘উলামায়ে কিরামের আলোচনার প্রধান ও মূল বিষয়বস্তু “তাওহীদ” হওয়ার প্রকৃত কারণ কী, অত্র ভাষণে সে বিষয়টি অত্যন্ত চমৎকারভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।
সত্যিকার ‘উলামায়ে কিরামের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো এটাই যে, তারা সবসময় তাওহীদ ও তার প্রকার সমূহের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করে থাকেন। তারা প্রতিটি বিষয়ের কেন্দ্রবিন্দুতে তাওহীদকে রাখেন এবং তাওহীদের ভিত্তিতেই সকল কিছুর সমাধান দিয়ে থাকেন। এই পর্বে নিম্নোক্ত বিষয়াদী সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে:-
১) তাওহীদের গুরুত্ব বিষয়ে ২য় পর্বের সংক্ষিপ্ত পূণঃআলোচনা।
২) কেবল সেই ব্যক্তিই জান্নাতে প্রবেশ করবে, যে ব্যক্তি ছোট হোক বা বড়; কোন ধরনের শির্‌ক না করে প্রতিটি ‘আমাল বা ‘ইবাদাত একমাত্র আল্লাহ্‌র (جل وعلا) উদ্দেশ্যে সম্পাদন করবে। আর এটাই হচ্ছে ইখলাসের সারকথা। এই ইখলাস হলো আল্লাহ্‌র নিকট বান্দাহ্‌র ‘আমাল

ড.আশ্‌ শাইখ সালিহ্‌ আল ফাওযান রচিত “তাওহীদের গুরুত্ব” (২য় পর্ব)

এই অডিওটি হলো আহামিয়্যাতুত্ তাওহীদ বা তাওহীদের গুরুত্ব শিরোনামে শাইখ ফাওযান حفظه الله প্রদত্ত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণের বাংলা অনুবাদ। যুগে যুগে সত্যিকার সকল ‘উলামায়ে কিরামের আলোচনার প্রধান ও মূল বিষয়বস্তু “তাওহীদ” হওয়ার প্রকৃত কারণ কী, অত্র ভাষণে সে বিষয়টি অত্যন্ত চমৎকারভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।
সত্যিকার ‘উলামায়ে কিরামের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো এটাই যে, তারা সবসময় তাওহীদ ও তার প্রকার সমূহের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করে থাকেন। তারা প্রতিটি বিষয়ের কেন্দ্রবিন্দুতে তাওহীদকে রাখেন এবং তাওহীদের ভিত্তিতেই সকল কিছুর সমাধান দিয়ে থাকেন। এই পর্বে নিম্নোক্ত বিষয়াদী সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে:-
১) তাওহীদের গুরুত্ব বিষয়ে ১ম পর্বের সংক্ষিপ্ত পূণঃআলোচনা।
২) রাছূলুল্লাহ্‌র (صلى الله عليه وسلم) নাবুওয়্যাত লাভের পূর্বে ‘আরাবজাতিগুলো নিজেদের মধ্যে দ্বন্ধ-সংঘাতে লিপ্ত ছিল, তাদের মধ্যে কোন ঐক্য ছিল না। তারা ছিল পারস্য ও রোম শাসিত এক জাতি। রাছূলুল্লাহ صلى الله عليه وسلم এসে তাদেরকে তাওহীদের দিকে আহবান করলেন।

ড.আশ্‌ শাইখ সালিহ্‌ আল ফাওযান রচিত “তাওহীদের গুরুত্ব” (১ম পর্ব)

এই অডিওটি হলো আহামিয়্যাতুত্ তাওহীদ বা তাওহীদের গুরুত্ব শিরোনামে শাইখ ফাওযান حفظه الله প্রদত্ত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণের বাংলা অনুবাদ। যুগে যুগে সত্যিকার সকল ‘উলামায়ে কিরামের আলোচনার প্রধান ও মূল বিষয়বস্তু “তাওহীদ” হওয়ার প্রকৃত কারণ কী, অত্র ভাষণে সে বিষয়টি অত্যন্ত চমৎকারভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।
সত্যিকার ‘উলামায়ে কিরামের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো এটাই যে, তারা সবসময় তাওহীদ ও তার প্রকার সমূহের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করে থাকেন। তারা প্রতিটি বিষয়ের কেন্দ্রবিন্দুতে তাওহীদকে রাখেন এবং তাওহীদের ভিত্তিতেই সকল কিছুর সমাধান দিয়ে থাকেন। এই পর্বে নিম্নোক্ত বিষয়াদী সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে:-
১) তাওহীদ কি?
২) তাওহীদের গুরুত্ব-প্রয়োজনীয়তা এবং ইছলামে এর অবস্থান সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা প্রত্যেক মুছলমানের জন্য আবশ্যক, কেননা তাওহীদ-ই হলো ইহ-পরকালীন মুক্তি ও সফলতার একমাত্র চাবিকাঠি।

ওয়াছীলাহ গ্রহণ সম্পর্কিত বিষয়াদী

এটি শাইখ হাম্মাদ বিল্লাহ حفظه الله প্রদত্ত একটি বক্তৃতা। এতে তিনি কি ধরনের ওয়াছীলাহ গ্রহণ করা শারী‘য়াত সম্মত তথা জায়িয বা বৈধ এবং কি ধরনের ওয়াছীলাহ গ্রহণ করা নাজায়িয বা অবৈধ, তাছাড়া সত্যবিচ্যুত, বাতিলপন্থি বিভিন্ন দল কিভাবে তাওয়াছ্‌ছুল বা ওয়াছীলাহ গ্রহণের বিষয়টির অপব্যাখ্যা করে সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন রকমের শির্‌ক ও বিদ‘আতে লিপ্ত করে থাকে, সে সব বিষয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি শ্রোতাদেরকে এই মর্মে আহবান জানিয়েছেন যে, যেহেতু ওয়াছীলাহ গ্রহণ করা হলো ‘ইবাদাত, তাই তারা যেন ওয়াছীলাহ গ্রহণের পূর্বে এর বৈধ এবং অবৈধ পন্থা ও পদ্ধতি সম্পর্কে এবং এ দু‘য়ের পার্থক্য সম্পর্কে সম্যক অবগত হন।

Subscribe to our mailing list

* indicates required
Close